নতুন হজযাত্রীদের জন্য করণীয়

প্রত্যেক মুসলমানের জীবনের পরম বাসনা থাকে অন্তত একবার গিয়ে আল্লাহর ঘরে হাজির হওয়া। যাদের এই সুযোগ ঘটে তারা নিঃসন্দেহে সৌভাগ্যবান। আমাদের দেশ থেকে প্রতিবছর লক্ষাধিক লোক হজ পালনের জন্য সৌদি আরবে যান। এবার যারা হজে যাবেন ইতোমধ্যে তাদের ফ্লাইট শুরু হয়েছে। হজযাত্রীদের সবার আগে মনোবল দৃঢ় করতে হবে। হজের সফরে যাওয়ার জন্য মানসিকভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে এখনই। সারা বিশ্বের প্রায় ২৫ লাখ মানুষ প্রতিবছর হজে যান। এত মানুষের মধ্যে সবকিছুরই কিছু সমস্যা ও কষ্ট তো হবেই। মানসিকভাবে প্রস্তুত থাকলে কষ্টও কষ্ট মনে হবে না।

প্রেমিক তার প্রেমাস্পদের সঙ্গে মিলিত হতে যাচ্ছেন, সুতরাং সাময়িক কোনো কষ্টই অনুভূত হওয়ার কথা নয়। হজ ফ্লাইটের ৩০ দিন আগেই ম্যানিনজাইটিস ইনজেকশন ও ইনফ্লুয়েঞ্জা জ্বরের টিকা দিয়ে তার সার্টিফিকেট কপি ট্রাভেলস অফিসে জমা দিতে হবে। হজের নিয়মকানুন সম্পর্কে ভালোভাবে অবগত হয়ে নেবেন। সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় বিভিন্ন স্থানে হজ প্রশিক্ষণ হয়, প্রয়োজনে সেখানে অংশ নিয়ে জেনে নিতে পারেন হজের বিস্তারিত মাসয়ালা-মাসায়েল। বিশেষ করে যারা নতুন হজে যাচ্ছেন তাদের সবকিছু জেনে নেয়া ভালো।

এছাড়া সম্ভব হলে আরবি ও ইংরেজি ভাষায় প্রাথমিক জ্ঞানার্জন করে নিতে পারলে ভালো হয়। পবিত্র মক্কা ও মদিনার ঐতিহাসিক পুণ্যময় জায়গাগুলো এবং আল্লাহর দরবারে দোয়া কবুল হওয়ার যে স্থানগুলো রয়েছে সে সম্পর্কে অবগত হয়ে নেবেন। যে ট্রাভেলসের মাধ্যমে হজে যাচ্ছেন তাদের খোঁজখবর নেবেন; কারা আপনার হজের সফরসঙ্গী হচ্ছেন সম্ভব হলে আগে থেকেই তাদের সঙ্গে পরিচিত হয়ে নেবেন।

সর্বোপরি হজের সফরের আগেই অন্তরটাকে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করে নেবেন। কোনো ঋণ থাকলে পরিশোধ করে যাবেন; কারো মনে কষ্ট দিয়ে থাকলে আগেই ক্ষমা চেয়ে নেবেন। হজের পুরো সফরে যেন কোনো বিষয়ে ভাবতে না হয় সে ব্যবস্থা করে যাবেন। রাসুল (সা.) বলেছেন, ‘বিশুদ্ধ ও মকবুল হজ পৃথিবী এবং পৃথিবীর যাবতীয় বস্তু অপেক্ষা উত্তম। জান্নাত ছাড়া আর কোনো কিছুই এর বিনিময় বা প্রতিদান হতে পারে না।’ সুতরাং যারা হজে যাচ্ছেন তাদের চেয়ে সৌভাগ্যবান আর কেউ হতে পারেন না। এ জন্য দোয়া করতে থাকুন আল্লাহ যেন সৌভাগ্যবানদের তালিকা থেকে আপনাকে বঞ্চিত না করেন।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।