১৬ জুন, ২০১৯ | ২ আষাঢ়, ১৪২৬ | ১২ শাওয়াল, ১৪৪০


যখন রক্ত দান করতে পারবেন না

রক্তদান একটি মহৎ কাজ। একজন রোগীর জীবন বাঁচাতে এটি অনেক বড় একটি উপকার। কিন্তু সব সময়ে চাইলেও রক্ত দিতে পারবেন না। আর না জেনেই যদি রক্ত দিয়ে বসেন তবে নিজের ক্ষতির সাথে সাথে রোগীরও ক্ষতি করবেন।

এমন কোনো ওষুধ খেলে

বেশির ভাগ ওষুধ আপনাকে রক্তদানে অযোগ্য করে তোলে না। তবে কিছু ওষুধের ডোজের পর একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়। চিকিৎসকরা বলেন, অ্যান্টিবায়োটিক ওষুধ খেলে সুস্থ না হওয়া পর্যন্ত আপনাকে অপেক্ষা করতে হতে পারে। অ্যাসপিরিন বা অন্য কোনো অ্যাসপিরিন সমৃদ্ধ ওষুধ খেলে রক্তদানের আগে দুই দিন অপেক্ষা করতে হবে।

সম্প্রতি টিকা নিলে

কিছু টিকা নিলে একটা নির্দিষ্ট সময় পর্যন্ত রক্তদান করা ঠিক নয়। বিশেষ করে হাম, শিনগ্লেস ও চিকেন পক্সের টিকা নেয়ার পর রক্তদানের জন্য অন্তত চার সপ্তাহ অপেক্ষা করা উচিত।

ট্যাটু করলে

ট্যাটু করার পর রক্তদানের আগে নিশ্চিত হতে হবে যে আপনার কোনো ইনফেকশন নেই। অনেক ক্ষেত্রে রক্তদানের পূর্বে আপনাকে ১২ মাস অপেক্ষা করতে হবে।

হেপাটাইটিস বা এইচআইভি পজিটিভ

এইচআইভি বা হেপাটাইটিস রক্তের মাধ্যমে ছড়াতে পারে তাই পরীক্ষায় ধরা পড়লে কোনো ভাবেই রক্ত দেয়া যাবে না।

সম্প্রতি দেশের বাইরে গেলে

সম্প্রতি দেশের বাইরে গেলে রক্তবাহিত কিংবা ছোঁয়াচে ইনফেকশন হতে পারে। তাই এমন হলে রক্ত দেয়া যাবে না।

ওজন কম থাকলে

যদি আপনার ওজন ১১০ পাউন্ডের নিচে হয়, তাহলে রক্ত দেয়া যাবে না। কম ওজনের মানুষের নিম্ন রক্তচাপ থাকে।

আয়রনের মাত্রা কম

যদি নারী ও পুরুষদের যথাক্রমে ১২.৫ জি/ডিএল এবং ১৩.০ জি/ডিএল এর চেয়ে কম আয়রন থাকে, তাহলে তারা রক্ত দিতে পারবেন না। আয়রন কম বা বেশি দুইটাই খারাপ এবং তা রক্ত দেয়ার জন্য অযোগ্যতা।

সমকামী হলে

সমকামী হলে রক্তদানের আগে পূর্বে আপনার সবশেষ যৌন সম্পর্ক থেকে অবশ্যই ১২ মাস অপেক্ষা করতে হবে।

ক্যান্সার চিকিৎসা চললে

ক্যান্সার চিকিৎসা চললে রক্ত দেয়া যাবে না। কারণ এমন অবস্থায় ক্যান্সার আপনার নিজের রক্তেও ছড়াতে পারে। ফলে এতে যাকে রক্ত দেবেন তার ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

গর্ভবতী হলে

গর্ভবতী নয় এমন নারীদের তুলনায় গর্ভবতী নারীদের সন্তান প্রসবের পর রক্তদানের জন্য অবশ্যই অন্তত ছয় সপ্তাহ অপেক্ষা করতে হবে।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।