১৭ জুন, ২০১৯ | ৩ আষাঢ়, ১৪২৬ | ১৩ শাওয়াল, ১৪৪০


বিবিএন শিরোনাম
  ●  ঈদগাঁও নদীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে আইনি নোটিশ   ●  উখিয়ায় ৪ যুবক সহ নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল জব্দ   ●  সেনাবাহিনীকে জনগণের পাশে দাঁড়াতে হবে: প্রধানমন্ত্রী   ●  কক্সবাজার কারাগারে অনুসন্ধানের শুরুতেই দুর্নীতির প্রমাণ পেলো দুদক   ●  টেকনাফে বন্দুক যুদ্ধেে নাইক্ষ্যংছড়ি ছাত্রলীগ নেতা নিহত   ●  ঈদগাঁও থেকে কক্সবাজার শহরের শীর্ষ মাদক ব্যবসায়ী রফিকের গুলিবিদ্ধ লাশ উদ্ধার   ●  ঢাকার শাহবাগ থেকে ওসি মোয়াজ্জেম গ্রেপ্তার   ●  যেকোনো প্রকার ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় প্রস্তুত থাকুন : প্রধানমন্ত্রী   ●  সেই কিশোরের মৃত্যুদণ্ড বাতিল করলো সৌদি আরব   ●  টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত ৩

খুটাখালীতে বোনকে দেখতে গিয়ে হামলার শিকার ভাইসহ ৩জন

চকরিয়া উপজেলার খুটাখালীতে বোনকে দেখতে গিয়ে দুলাভাইয়ের পরিবারের হাতে হামলার শিকার হন ভাইসহ ৩জন।গত ৯জুন সকাল ১১টার সময় ন্যাক্কারজনক এ ঘটনা ঘটে।জানা যায়,হামলায় আহতদের মধ্যে মনোয়ারা বেগমের ছোট ভাই হাছান আলী।তার বাড়ী ডুলাহাজারা ইউপির ১নং ওয়ার্ডের রিংভং ছগিরশাহ কাটা দক্ষিণ পাহাড় গ্রামের বাহাদুল আলমের পুত্র।জখম প্রাপ্ত হাছান আলী জানান,আমি গত ৯জুন সকাল ১১টার সময় আমার বোন মনোয়ারা শাশুড় বাড়ীতে ঈদ উপলক্ষে বেড়াতে যায়।আমার সাথে মা-সহ বড়-ছোট ৩জন বোন মিলে বেড়াতে গিয়েছি।আমরা যখন বোন মনোয়ারার শাশুড় বাড়ীতে পৌছি।এমতাবস্হায় আমাদেরকে দেখে আমার বোন মনোয়ারা উচ্চ স্বরে কেঁদে দিলে,সাথে সাথে আমার দুলাভাই বদিউজ্জামান সহ তার ৫ভাই, ৬জন ভাতিজা, ৫/৬জন মহিলা ও তার বোন জামাই ৩জন মিলে অর্তকিত অবস্হায় কোন কথাবার্তা ছাড়া বেদড়ক মারধর করে।পরে এলাকাবাসী এগিয়ে না আসলে আমাকে চাকু দিয়ে জবাব করা থেকে রক্ষা পেতামনা।তবু আমি সহ বোন মনোয়ারা ও ভাগিনা মহোছনা আকতারকে গুরুত্বর ফাটা জখম করায়, আমরা হামলার শেষে আসার পথে অত্র ওয়ার্ড মেম্বার ওয়াসিমকে ঘটনার সমস্ত বিবরণ জখম দেখিয়ে এসেছি।আসার পথে দুলাভাই সহ অপরাপর পুরুষেরা আবার পথ রোদ্ধ করে ফের মারধর করে।তাদের পিছনে আসা রাজিয়াসহ ৩পুরুষ আবারো চাকু দিয়ে আঘাতের চেষ্টাকালে পথচারীর হস্তক্ষেপে রক্ষ পায়।হামলা কারীরা হলেন,খুটাখালী ইউপির ৭নং ওয়ার্ডের কাঠালিয়া পাড়ার মৃত  সোলাইমানের পুত্র বদিউজ্জামান,আব্দু সালাম,নুরুল ইসলাম। তাদের ভাতিজা আবু তালেব,কামরুল হাছান,আবু তাহের, আবচার। বদিজ্জামানের বড় বইয়ের মেয়ের জামাই আজিম,আব্বাস সহ মহিলা মিলে আরো ৭/৮জন ঘটনায় জড়িত ছিল।ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে ওয়ার্ড মেম্বার ওয়াসিম বলেন,বদিউজ্জামানের দ্বিতীয় স্ত্রী মনোয়ারারা মা,বোন ও এক ভাই বেড়াতে আসলে, এরমধ্যে কথাকাটা হলে এক পর্যায়ে মারধরেরর ঘটনা ঘটে।এলাকাবাসী সহ হামলার শিকার হাছান আলী কথা মত তাদের বদির বাড়ীর লোকেরা ব্যাপক মারধর করেছে।এছাড়া মহিলাসহ আরো ২/৩জনের হাতে চাকু-টাকু ছিল শুনেছি।কিন্তু এখনো বদির পরিবাবে কেউ আমার সাথে যোগাযোগ করেনি।তবে মনোয়ারার ভাইরা প্রতিনিয়ত যোগাযোগ করলেও আমি তাদেরকে কোন ধরনের ভালমন্দ উত্তর দিতে পারছিনা।কারণ বদির পরিবার আমার ডাকেও ছাড়া দিচ্ছেনা তাই।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।