২০ জুলাই, ২০১৯ | ৫ শ্রাবণ, ১৪২৬ | ১৫ জিলক্বদ, ১৪৪০


পাকা নয়,কাচাঁ রাস্তাও ভাল নেই: পেকুয়া সদর ইউপিতে

বাংলাদেশ স্বাধীনের ৪৮ বছরেও কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার সদর ইউপির  অবহেলিত দূর্গম গ্রামটির ছিরাদিয়া। যে গ্রামে কয়েক হাজার মানুষের বসবাস।ঐ গ্রামে যেতে নেই কোন ইট বসানো বা ব্রিক-সুলিন রাস্তা,নেই কাদাঁ মাটি দিয়ে তৈরী ভাল মানের রাস্তা।অবহেলিত ভাবে পড়ে থাকা সেই গ্রামটির মানুষের দূভোগের কথা ভাবার কোন অভিভাবক নেই। প্রত্যন্ত ও  দুর্গম এলাকা যাকে বলে। মাটির যে রাস্তাটি আছে তাও ধানি জমির চেয়ে নিচু হয়ে গেছে। হাটু কাঁদা মাড়িয়ে সারাজীবন চলাফেরা ঐ এলাকার মানুষের। বর্ষায় রাস্তাটি পানির নিচে তলিয়ে থাকে। ওই সময় নৌকা নিয়ে চলাচল করতে হয়। তাদের এ অবস্থা থেকে মুক্তি দেয়ার জন্য ছিরাদিয়া মসজিদ থেকে বিলাহাছুরার পাকা সড়ক পর্যন্ত প্রায় ১ কিলোমিটার রাস্তার কাজ করে দিলেই দুঃখ কিছুটা কমে যাবে। ছিরাদিয়া মসজিদ থেকে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়িবাঁধ হয়ে বাঘগুজারা বাজার পর্যন্ত এলাকায় ব্রিক-সলিন করে দিলে ছিরাদিয়ার মানুষের অনেক দিনের একটি স্বপ্নের বাস্তবায়ন হবে। এ ব্যাপারে ওই এলালাকার মানুষ চকরিয়া- পেকুয়ার গণ মানুষের প্রিয় নেতা সাংসদ আলহাজ্ব জাফর আলম বিএ(অনার্স)এমএ’র সদয় দৃষ্টি একমাত্র কাম্য জানান। তবে এলাকার জনগন বলেন,আজকে এমন বৃষ্টির দিন হাটুঁ কাদা মেখে আমাদের দেখতে এসেছেন,এ ইউপির কর্ণধার সাংবাদিক জহিরুল ইসলাম।এর পূর্বে এলাকার কোন ব্যক্তি আমাদের ছিরাদিয়ার সড়কের বিলকিও মারেনি।তাই আমাদের সড়কের উন্নয়ন না হলেও যে মায়া-জড়িত মানুষ খুজেঁ পেয়েছি এতে আমরা ধন্য।সুতরাং সামান্য অনুদান সহ সামনে এমপির হাতের ছোয়াঁ আসার স্বপ্ন এখন দেখতে পেয়েছি বলে উল্লেখ করেন।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।