২২ জুলাই, ২০১৯ | ৭ শ্রাবণ, ১৪২৬ | ১৭ জিলক্বদ, ১৪৪০


উখিয়ায় বন্ধ হচ্ছে না ইয়াবা ব্যবসা,পাচারকারীরা অপ্রতিরোধ্য!

জেলায় মাদক বিরোধী ব্যাপক কড়াকড়ির অভিযান ও বন্দুক যুদ্ধের নিহতের ঘটনার পরও উখিয়ায় ইয়াবা ব্যবসা বন্ধ হচ্ছে না। পাচারকারীরা দিনদিন অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে। যেন আইনশৃংখলা বাহিনীর সাথে চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে হলদিয়ার দ্’ুসহোদরের নেতৃত্বে চোরাকারবারীরা ইয়াবার চালান পাচার করে আসছে। খোঁজখবর নিয়ে জানা যায়, টেকনাফ ও কক্সবাজার সদরে মাদক বিরোধী অভিযানের নামে আইনশৃংখলা বাহিনী ক্রাশ প্রোগ্রামে নেমে পড়েছে। মাদক নির্মূলের নামে একের পর এক বিশাল ইয়াবার চালান আটক করছে। একই সাথে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের তালিকা ভূক্ত ইয়াবা গড ফাদারকে আটক করছে। শুধু তাই নয় মাদক বিরোধী অভিযানে এ পর্যন্ত আইনশৃংখলা বাহিনীর সাথে বন্দুক যুদ্ধে ১২৬জন ইয়াবা কারবারী নিহত হয়েছে। সচেতন জনগনের অভিমত টেকনাফ ও কক্সবাজার সদরে ইয়াবা বিরোধী অভিযানে তুলানা মূলক সফল হলেও উখিয়ায় তা সম্পূর্ণ ব্যর্থ। আইনশৃংখলা বাহিনীর সাথে রীতিমত চ্যালেঞ্জ দিয়ে উখিয়ার বিভিন্ন সিমান্ত পয়েন্ট দিয়ে বানের পানির মত ইয়াবার চালান আসছে মিয়ানমার থেকে। অভিযোগে প্রকাশ, হলদিয়ার মাহমুদুল হক (২৫) ও সালা উদ্দিনের নেতৃত্বে শক্তিশালী সিন্ডিকেট মরিচ্যা কেন্দ্রিক ইয়াবা পাচারে নেতৃত্ব দিচ্ছে। ৫নং ওয়ার্ডের মধ্যম হলদিয়া ঘাটির পাড়ার বাসিন্দা হাজী নুরুল হুদার পুত্র তারা। গত কয়েক বছরে ইয়াবা পাচার করে বহু গাড়ি ও দোকানের মালিক বনে গেছে। ক্রয় করেছে প্রচুর পরিমাণ জমি। গ্রামবাসীরা জানান, মাহমুদুল হক ও সালা উদ্দিন ইয়াবা ব্যবসার গড ফাদার হলেও আইনশৃংখলা বাহিনীর নিকট রয়েছে ধরা ছোয়ার বাইরে। নাইক্ষংছড়ির ঘুমধুম সীমান্তর পয়েন্ট দিয়ে এ আপন দু’সহোদরের নেতৃত্বে ইয়াবা সিন্ডিকেটের আর্রিভাব ঘটে। হলদিয়া, পাতাবাড়ি ও মরিচ্যা কেন্দ্রিক পুরো ইয়াবা ব্যবাসা তাদের হাতে। মিয়ানমারের ইয়াবা ডিলারের সাথে রয়েছে তাদের সখ্যতা। প্রচুর পরিমাণ কালো টাকা মালিক মাহমুদুল হক ও সালা উদ্দিনের টিআরএস, হায়েস ও নোহা গাড়ির পাশাপাশি রয়েছে সিএনজি। মরিচ্যা বাজারে ইয়াবার আড়ালে বিভিন্ন ডিলারশীপ এজেন্ট। তাদের সহযোগী হিসাবে রয়েছে শাকিল, কামাল ও আরিফ। খোজ নিয়ে জানা গেছে, ইতিমধ্যে সহযোগী আরিফ (২০) ইয়াবার চালান নিয়ে চট্টগ্রাম নতুন ব্রীজ এলাকায় গ্রেপ্তার হলেও তারা এখনো অধরা রয়ে গেছে। তবে মাঝে মধ্যে আইনশৃংখলা বাহিনীর সদস্য অভিযান পরিচালনা করলেও তাদেরকে গ্রেপ্তার সম্ভব হয়নি। এদিকে, গত ২৬ জুলাই উখিয়া সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে বিশাল মাদক বিরোধী সমাবেশে জেলার সর্বোচ্চ কর্মকর্তা উপস্থিত হয়ে ইয়াবা নিমূলের ঘোষণা দেন। সমাবেশে জেলা প্রশাসক, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট, বিজিবি’র উপ-অধিনায়ক, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, মাদক দ্রব্য অধিদপ্তরের উপ-সহকারী পরিচালক, উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা , উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানগন তাদের বক্তব্যে উখিয়ার চিহ্নিত ও তালিকা ভ্ক্তূ ইয়াবা গড ফাদার এবং মাদক পাচারকারীদেরকে আইনের আওতায় আনার দাবী জানান।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।