২১ জুলাই, ২০১৯ | ৬ শ্রাবণ, ১৪২৬ | ১৭ জিলক্বদ, ১৪৪০


ব্যর্থতার দায় আমার, দেশে ফিরে মাশরাফি

বিশ্বকাপ কি বাংলাদেশের প্রত্যাশা পূরণ করেছে নাকি হতাশ করেছে সমর্থকদের? এর উত্তর বিভিন্ন হতে পারে। বিশেষজ্ঞদের চোখে বাংলাদেশের পারফরম্যান্স একরকম, সমর্থকদের চোখে অন্য রকম। ব্রেন্ডন ম্যাককালামের ভবিষ্যদ্বাণী অনুযায়ী তো বাংলাদেশ তিন গুণ সাফল্য নিয়ে ফিরেছে বিশ্বকাপ থেকে! কিন্তু খেলোয়াড়েরা নিজেরা কী মনে করেন?

আজ দেশে ফিরেছে বাংলাদেশ দল। দুই মাস লম্বা এক সফর শেষে ক্লান্ত ক্রিকেটারদের সবার মতামত জানার উপায় ছিল না। তবে দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার কঠিন ভার যেহেতু তাঁর কাঁধে, এমন পরিস্থিতিতেও কথা বলার কষ্টটা সইতে হলো মাশরাফি বিন মুর্তজাকে। এবং মাশরাফি বলছেন, দলের পারফরম্যান্সে ইতিবাচক অনেক দিকই আছে। কিন্তু নিজেদের বেঁধে দেওয়া মানদণ্ডে পাস করতে পারেননি, তাই হতাশ পুরো দলই।

দলের পারফরম্যান্স নিয়ে কথা বলতে গিয়ে আলাদা করে চারজনের কথা বলেছেন অধিনায়ক, ‘সাকিব অসাধারণ। সাকিব ও মোস্তাফিজ, মুশফিক ও সাইফউদ্দিন অসাধারণ খেলেছে। আরও অনেকেই মাঝে মাঝে ভালো করেছে। কিন্তু এ চারজনই আমার মনে হয় সব সময় ভালো করেছে। প্রত্যাশা অনুযায়ী ভালো করিনি কিন্তু খেলার ধরন দেখলে ইতিবাচক অনেক কিছুই পাওয়া যাবে।’

স্কোয়াডে ১৫ জন ছিলেন। আবু জায়েদ ছাড়া মাঠে নেমেছেন বাকি সবাই। অধিনায়কের কথা মানলে বাকি ১০ জন তাহলে হতাশই করেছেন। আর তাঁদের নিয়ে স্বভাবতই সমালোচনাও হচ্ছে। সবচেয়ে বেশি সমালোচনা হচ্ছে মাশরাফির নিজের। বিশ্বকাপে উইকেট পেয়েছেন মাত্র একটি। দলের প্রত্যাশা পূরণ করতে পারেননি অধিনায়ক। এ কারণে সমালোচনা শুনতে হচ্ছে। সে সমালোচনা মেনেও নিচ্ছেন মাশরাফি। দলের ব্যর্থতার দায়ভারও তাই নিজের কাঁধে নিয়ে নিয়েছেন।

অধিনায়ক হিসেবে নিজের দায় মেনে নিয়ে মাশরাফি বলেছেন, ‘সমালোচনাকে অমূলক মনে হয়নি। প্রত্যাশার দিকে দলকে যদি নিয়ে যেতে না পারি, তবে অধিনায়ক হিসেবে সমালোচনা নিতেই হবে। পুরো দলের ব্যর্থতার দায়ও আমাকে নিতে হবে। আমার জায়গায় অন্য কেউ হলেও তাকেও স্বাভাবিকভাবে এটা নিতে হতো। আমি অবশ্যই পুরো দায়ভার নিচ্ছি। এটাও বলব, সমালোচনা হয়েছে, হবেই। বিশেষ করে কোনো টুর্নামেন্ট শেষে এটা হবেই। আর বিশ্বকাপের পর হওয়াটাই স্বাভাবিক। তবে এটাও বলব, কিছু জিনিস আমাদের পক্ষে থাকলে আমাদের দল আজ অন্য জায়গায় থাকতেও পারত।’

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।