২১ জুলাই, ২০১৯ | ৬ শ্রাবণ, ১৪২৬ | ১৭ জিলক্বদ, ১৪৪০


সাতকানিয়ায় বন্যায় ৩০ হাজার মানুষ পানি বন্দি

টানা কয়েকদিনের ভারি বর্ষণে পাহাড়ী ঢলে বন্যায় সাতকানিয়ায় ৩০ মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছেন। শঙ্খ নদীর পানি বিপদ সীমার উপর দিয়ে প্রবাহীত হচ্ছে। এতে নদী ভাঙ্গন তীব্র আকার ধারণ করেছে। পাহাড়ী ঢলে শত শত ঘরবাড়ী নদীতে বিলীন হয়ে যাচ্ছে। নদী ভাঙ্গনের শিকার ঘর হারা এসব মানুষ খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবন যাপন করছে। গত শনিবার থেকে ভারি বর্ষনে পাহাড়ি ঢলে বন্যা দেখা দিয়েছে। উপজেলার নিচু গ্রামগুলো বন্যায় মানুষ পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। বন্যায় উপজেলার বাজালিয়া বড়দুয়ারা মাহালিয়া রাস্তার মাথা এলাকা সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় বান্দরবান-চট্টগ্রাম সড়কে সোমবার থেকে লোকাল বাস চলাচল বন্ধ রেখেছে মালিকরা। এতে হাজারও যাত্রী দুর্ভোগে পড়েন। যাত্রীরা পানিতে ডুবে থাকা স্থানে নৌকা, ভ্যান ও রিক্সা দিয়ে পারা-পার হচ্ছে।মিজানুর রহমান নামের এক যাত্রী বলেন, সড়কটি বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় ভ্যান দিয়ে পার হতে হচ্ছে। আমার মতো হাজারও মানুষ দুর্ভোগে পড়েছেন। উপজেলার বাজালিয়া, ছদাহা, ওখিয়ারকুল, কেঁওচিয়া, তেমুহনী, জনার কেঁওচিয়া, পশ্চিম ঢেমশা, দক্ষিণ ঢেমশা, বিল্লাপাড়া, আলমগীপাড়া, সাতকানিয়া সদর ইউনিয়ন, সোনাকানিয়া, ডলুখালের পানি বেড়ে চরতী, আমিলাইষ, মরফলা, নলুয়া, ধর্মপুর ও কালিয়াইশে বন্যায় অর্ধ শতাধিক মৎস্য পজেক্ট ডুবে চাষীদের কোটি টাকার মাছ বন্যার পানিতে ভেসে গেছে। এছাড়া ফসলেরও ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।

উত্তর ঢেমশা বাসিন্দা ইসমাইল খাদেম জানান, বন্যায় বড়–য়াপাড়া সড়ক ডুবে গেছে। এ এলাকার বাসিন্দারা নৌকা দিয়ে যাতায়ত করছে। বীজতালা পানিতে তলিয়ে গেছে।

আমিলাইষ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এসএম হানিফ বলেন, পানির স্রোতে আমিলাইষের নদীর তীরবর্তী কয়েক শতাধিক ঘরবাড়ি বিলীন হয়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারদের তালিকা করে উপজেলা প্রশাসনের কাছে পাঠানো হবে। হেফাজতুর রহমান জানান, বন্যায় অনেক পরিবার পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। এতে পরিবারগুলো মানবেতর জীবন যাপন করছে। বন্যা কবলিত এলাকার হতদরিদ্র পরিবারের লোকজন কিছু শুকনো খাবার খেয়ে কষ্টে দিন কাটাচ্ছে। এছাড়া সাপ-পোকার উপদ্রব বেড়েছে। বিশুদ্ধ খাবার পানি সংকট ও গো-খাদ্যের অভাব দেখা দিয়েছে। তেমুহনী গ্রামের বাসিন্দারা জানান, ভারি বর্ষণে হাঙ্গরখালের বাঁধ ভেঙ্গে বন্যায় ঘরবাড়ি ডুবে যাওয়ায় লোকজন আশ্রয় কেন্দ্রে উঠেছে। বন্যার পানিতে টয়লেট তলিয়ে যাওয়ায় পুরুষের চেয়ে নারীদের সমস্যা বেশি হচ্ছে। সাতকানিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মোবারক হোসেন বলেন, বন্যায় প্লাবিত এলাকাগুলোর খোঁজ খবর নেয়া হচ্ছে। বন্যা পরিস্থিতি সম্পর্কে জেলা প্রশাসক মহোদয়কে জানানো হয়েছে।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।