২২ অক্টোবর, ২০১৯ | ৬ কার্তিক, ১৪২৬ | ২১ সফর, ১৪৪১


বিবিএন শিরোনাম
  ●  ঈদগাঁওতে ৭ বছরের ভাতিজিকে ধর্ষনঃ ধর্ষক চাচা আটক   ●  মাদক মামলায় এসআই’র ৫ বছরের কারাদণ্ড   ●  ঈদগাহকে থানা হিসেবে অনুমোদন   ●  কক্সবাজারের সোনাদিয়া দ্বীপে শিল্প-কারখানা স্থাপন নয় : প্রধানমন্ত্রী   ●  কক্সবাজার জেলা কমিউনিটি পুলিশ : সাংবাদিক তোফায়েল সভাপতি, যুবলীগের বাহাদুর সেক্রেটারি   ●  গুজব ছড়িয়ে সাম্প্রদায়িক অনুভূতিতে আঘাত হানা থেকে বিরত থাকুন : ডিসি কামাল হোসেন   ●  কক্সবাজার আদালতে ইয়াবা মামলায় ২ আসামির ৫ বছর কারাদণ্ড   ●  চাল নিয়ে চালবাজি, সদর খাদ্য গুদাম সীলগালা   ●  রামুতে ভূয়া জন্ম সনদে রোহিঙ্গা স্ত্রীকে ভোটার করার চেষ্টা, দম্পতিকে জরিমানা   ●  ইসলামপুরে জুয়ার আস্তানা গুঁড়িয়ে দিল পুলিশঃ  আটক ৬

অবৈধদের সাধারণ ক্ষমা মালয়েশিয়ার, ফিরতে পারবেন দেশে

নিয়মিত অভিযান চালালেও অবৈধ অভিবাসীদের বিরাট অংশ রয়ে গেছে মালয়েশিয়ার অভিবাসন পুলিশের ধরাছোঁয়ার বাইরে। তাই তাঁদের দেশে ফেরত পাঠাতে নতুন কৌশল নিয়েছে দেশটির সরকার। সাধারণ ক্ষমার আওতায় স্বেচ্ছায় দেশে ফিরতে ৫ মাসের সুযোগ দিচ্ছে দেশটি। এর পরে অবৈধদের ধরতে কঠোর অভিযান চালাবে দেশটির পুলিশ।

অবৈধ অভিবাসীদের দেশে ফিরতে দেওয়া মালয়েশিয়া সরকারের ঘোষণার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব আহমেদ মুনিরুছ ছালেহীন। এর মধ্য দিয়ে পুলিশের হাতে আটক ও কারাগারে যাওয়ার হাত থেকে রক্ষা পাবেন অভিবাসীরা।

মালয়েশিয়ার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহিউদ্দিন বিন মোহাম্মদ ইয়াসিনের স্বাক্ষরিত এক ঘোষণায় বৃহস্পতিবার বলা হয়েছে, আগামী ১ আগস্ট থেকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত এ সুযোগ পাবেন অবৈধ অভিবাসীরা। মালয়েশিয়ার অভিবাসন বিভাগের আওতায় দেশজুড়ে ৮০টি কাউন্টার খোলা হবে। অবৈধ ব্যক্তিদের সরাসরি অভিবাসন কার্যালয়ের কাউন্টারে উপস্থিত হয়ে আবেদন করতে হবে। যাঁদের কাছে পাসপোর্ট নেই, তাঁরা ট্রাভেল পাস নিয়ে দেশে ফিরতে পারবেন। প্রতি অভিবাসীকে ৭০০ রিঙ্গিত (১৪ হাজার টাকা) পরিশোধ করতে হবে। প্রতারণা থেকে সাবধান হতে এবং যেকোনো এজেন্ট বা দালালের সঙ্গে টাকা লেনদেন না করতে সতর্ক করা হয়েছে।

মালয়েশিয়ায় বিভিন্ন দেশের ২০ থেকে ৩০ লাখ অবৈধ অভিবাসী আছে বলে মনে করছে অভিবাসন খাত নিয়ে কাজ করা এশিয়ার ২০টি দেশের আঞ্চলিক সংগঠন ক্যারাম এশিয়া। তবে বাংলাদেশের অবৈধ অভিবাসীর সঠিক কোনো চিত্র পাওয়া যায়নি। মালয়েশিয়ায় বাংলাদেশ দূতাবাসের শ্রমবিভাগ বলছে, এটি কয়েক হাজার হতে পারে। যদিও এটি নাকচ করে দিয়েছেন অভিবাসন খাতে কাজ করা দেশের উন্নয়ন সংস্থা ও ব্যবসায়ীরা। তারা বলছেন, দেড় থেকে দুই লাখ অবৈধ অভিবাসী থাকার সম্ভাবনা রয়েছে দেশটিতে। যদিও গত মার্চে বেসরকারি খাতে অভিবাসনবিষয়ক সংসদীয় ককাসের একটি প্রতিনিধি দল মালয়েশিয়া সফরে গিয়েছিল। দেশে ফিরে প্রতিনিধিদলটি জানায়, মালয়েশিয়ায় প্রায় ছয় লাখ কর্মী অবৈধ অবস্থায় আছেন।

বিমানবন্দর, বাংলাদেশ পুলিশ ও বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ব্র্যাকের অভিবাসন বিভাগের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, গত এক দশকে মালয়েশিয়া থেকে ৮০ হাজারের বেশি কর্মী শূন্য হাতে দেশে ফিরে এসেছেন। গত ৬ মাসে ট্রাভেল পাস নিয়ে দেশে ফিরেছেন প্রায় আড়াই হাজার অভিবাসী।

নানা কারণে অবৈধ হয়ে পড়া অভিবাসীদের কালো তালিকাভুক্ত করে দেশে ফেরত পাঠাতে চেয়েছিল মালয়েশিয়ার সরকার। এ তালিকা করা হলে আর কখনো মালয়েশিয়া যাওয়ার সুযোগ পেতেন না ফিরে আসা অভিবাসীরা। গত মে মাসে দুই দেশের যৌথ কমিটির সভায় সাধারণ ক্ষমার আওতায় দেশে ফেরার সুযোগ দেওয়ার বিষয়টি তোলে বাংলাদেশের প্রতিনিধিদল। সাধারণ ক্ষমার আওতায় ফিরে এলেও পরে আবার বৈধভাবে যাওয়ার সুযোগ পাবেন অভিবাসীরা।

এ বিষয়ে বায়রার মহাসচিব শামীম আহমেদ চৌধুরী বলেন, কালো তালিকাভুক্ত করে দেশে ফেরত পাঠানোর কথা ছিল, তা করা হয়নি। এটা অবশ্যই ইতিবাচক। অবৈধ অভিবাসন দেশের জনশক্তি রপ্তানির জন্য নেতিবাচক।

বিএমইটির তথ্য অনুযায়ী, ১৯৯২ সাল থেকে ২০১৮ পর্যন্ত বৈধভাবে কাজ নিয়ে মালয়েশিয়া গেছেন সাড়ে ১০ লাখ বাংলাদেশি। নানা অনিয়মের কারণে গত বছরের সেপ্টেম্বর থেকে এ শ্রমবাজারটি বন্ধ আছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :