১৯ আগস্ট, ২০১৯ | ৪ ভাদ্র, ১৪২৬ | ১৭ জিলহজ্জ, ১৪৪০


ইসলামপুর থেকে ৫ ট্রাক ভারতীয় লবন জব্দ করেছে ব্যবসায়ীরা

 কক্সবাজার সদরের শিল্প নগরী ইসলামপুর থেকে ৫ ট্রাক ভারতীয় লবন জব্দ করেছে স্থানীয় ব্যবসায়ীরা। উক্ত লবনের পরিমান আনুমানিক ৬০ টন হবে বলে লবন মিল মালিক সমিতি সূত্রে জানা গেছে। আজ ২০ জুলাই বিকাল ৪ টার দিকে ইসলামপুর লবন মিল এলাকার গ্রামীন সল্ট ওরপে (কইলার মিল) এর সামনে থেকে এ গাড়ী গুলো জব্দ করা হয়। ইসলামপুর লবন মিল মালিক সমিতির সভাপতি শামশুল আলম সকালের কক্সবাজারকে জানান,বাংলাদেশে পর্যাপ্ত পরিমান লবন মজুদ থাকা সত্বেও স্থানীয় গ্রামীন সল্টের স্বত্বাধিকারী তৈয়বুর রহমান চোরাই পথে আসা ভারতীয় লবন এনে মজুদ করে রাখছিল। এমন সংবাদ পেয়ে মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ ও ব্যবসায়ীদেরকে নিয়ে সেখানে উপস্থিত হয়ে আনুমানিক ৬০ টন লবনসহ ৫ টি ট্রাক জব্দ করা হয়।

পরে ঈদগাঁও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের একদল পুলিশ এসে ২ টি ট্রাক নিয়ে যায়, এবং ৩ টি ট্রাক লবন মিল মালিক সমিতির হেফাজতে রাখা হয়েছে। মিল মালিক সমিতির সভাপতি শামশুল আলম আরো জানায়,লবন গুলো কম দামে চট্রগ্রাম থেকে সংগ্রহ করে এনে বাজারজাত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছিল ঐ মিল মালিক তৈয়ব । যে লবন বাজারজাত করলে স্থানীয় ব্যবসায়ী ও চাষারা অধিক লোকসানে পড়ত। তাছাড়া লবন গুলো সোডিয়াম সালফেক্ট, যা মানব দেহের জন্য ক্ষতিকর।সোনালী সল্টের স্বত্বাধিকারী মোহাম্মদ শরীফ কোম্পানি জানান, দেশীয় লবনের প্রতি অশ্রদ্ধা জানিয়ে বিদেশী লবন আমদানি কারকদের বয়কট করতে হবে। তারা দেশের শত্রু, ব্যবসায়ীদের দোষমন। এ মৌসুমে কক্সবাজার সদরসহ দেশের উপকূলীয় অঞ্চলে প্রচুর লবন থাকা সত্বেও কেন বিদেশী লবন আমদানি করে তা বোধগম্য নয়। ইসলামপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক শাহজাহান চৌধুরী বলেন, দেশে পর্যাপ্ত লবন মজুদ থাকার পরও এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ী বিদেশী লবন আমদানি করে দেশের লবন শিল্পকে ধ্বংসের পায়তারা চালাচ্ছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ইসলামপুরে ৩ টি, পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে ২ টি ট্রাক রয়েছে।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :