২৩ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ৮ আশ্বিন, ১৪২৬ | ২২ মুহাররম, ১৪৪১


বিবিএন শিরোনাম
  ●  পাকিস্তানে ভয়াবহ দুর্ঘটনায় নিহত ২৬   ●  সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের মাধ্যমে কংক্রিটের ব্লক দিয়ে স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ করতে হবে   ●  ঈদগাঁওতে টমটম চালককে হত্যাঃ প্রতিবাদে শ্রমিকলীগের মানববন্ধন   ●  ঈদগাঁওতে সন্ত্রাসীদের হাতে নিহত যুবকের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তরঃ পৃথক দুই মামলা   ●  রোহিঙ্গা ইস্যুতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি না করে সরকারের পাশে থাকুন   ●  উখিয়া মাদক কারবারির বাড়ির মাল ক্রোক   ●  টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা দম্পতি নিহত   ●  ঈদগাঁওতে টমটম চালককে গুলি করে হত্যাঃ অস্ত্রসহ সাবেক সেনা কর্মকর্তার পুত্র ঘাতক আটক    ●  চেয়ারম্যান-মেম্বারের শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্ধারণ ‘গুজব’   ●  শেখ হাসিনার অ্যাকশন শুরু, শুদ্ধি অভিযান সারাদেশে চলবে : কক্সবাজারে ওবায়দুল কাদের

উখিয়ার পালংখালীতে গ্রেপ্তার আতংক গ্রামবাসীরা

উখিয়ার সীমান্ত জনপদ পালংখালীর আনজুমান পাড়া-নলবনিয়া গ্রামের জনমনে চুখে মুখে এখনো আতংক ও উৎকন্ঠায় রয়েছে। সর্বত্র টান টান উত্তেজনার পাশাপাশি বিজিবি’র ভয়ে ও গ্রেপ্তার আতংকে পুরো গ্রাম পুরুষ শূন্য হয়ে পড়েছে। সচেতন জনগন বিষয়টি সু-দৃষ্টি দিয়ে সাধারন নাগরিকের স্বাভাবিক চলাফেরা ও নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট প্রশাসন এবং জনপ্রতিনিধিদের নিকট দাবী জানিয়েছেন। জানা যায়, গত ২৮জুন বিজিবি’র সদস্যদের সাথে গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা সহ গুলি বর্ষনের ঘটনা ঘটে। গ্রামবাসীদের দাবী বিজিবি’র গুলিতে ১২ বছরের কিশোরী নুর নাহার ও আয়েফ আলী নামের এক ব্যক্তি গুলিবিদ্ধ হয়। বর্তমানে তারা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে। বিজিবি’র পক্ষে বলা হয়েছে আনজুমান পাড়ার বিজিবি ক্যাম্পের সদস্যরা ইয়াবার চালান পাচারের খবর পেয়ে নলবনিয়া গ্রামের অভিযানে যান। এ সময় পাচারকারীরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে তাদের উপর হামলা করে। হামলায় বিজিবি’র ক্যাম্প নায়ক সুবেদার নুরুল আলম ও ল্যান্স নায়েক জিল্লুর রহমান গুরুতর আহত হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে বিজিবি’র সদস্যরা ফাঁকা গুলি বর্ষণ করেণ। এ ঘটনায় বিজিবি বাদী হয়ে ৩২জন গ্রামবাসীর বিরুদ্ধে উখিয়া থানায় মামলা দায়ের করেন। গ্রামের অসহায় মহিলারা অভিযোগ করে বলেন পুরুষ শূন্য গ্রামে তারা চরম নিরাপত্তাহীনতায় বসবাস করছে। তাদের স্বাভাবিক চলা ফেরা ও বাড়িতে বসবাসের নিশ্চয়তা দাবী করছেন। এদিকে, গ্রামবাসীরা জানান, ঘটনার পর থেকে বিজিবি’র সদস্যরা আসামী ধরার নামে ঘরে ঘরে তল্লাশীর নামে পুরো এলাকায় আতংক সৃষ্টি করেছে। শুধু তাই নয় গ্রামে একাধিক বাড়ি-ঘর ভাংচুর করেছে এমনকি পথে ঘাটে ও রাস্তায় যাকে পাচ্ছে তাদেরকে মারধর করছে। স্থানীয় সচেতন নাগরিক সমাজের দাবী যারা প্রকৃত অপরাধী তাদেরকে গ্রেপ্তার করে আইনের আওতায় আনা হউক। কিন্তু বিজিবি’র সদস্যরা তা না করে নিরাপরাধ ব্যক্তিদেরকে নানা ধরণের হয়রানি, হুমকি সহ গ্রেপ্তারের নামে পুরো গ্রাম তল্লাশী যা মানবধিকার লঙ্গন। বর্তমানে মহিলা ছাড়া ওই গ্রামে কোন পুরুষ নেই। ৩৪ বিজিবি’র পক্ষে বলা হয় নলবনিয়া গ্রামে একদল সন্ত্রাসী ও ইয়াবা কারবারী বিজিবি’র সদস্যদের উপর হামলা করেছে। অপরাধীদেরকে গ্রেপ্তার করতে এ অভিযান পরিচালনা করা হচ্ছে। উখিয়া থানার অফিসার ইনর্চাজ মো: আবুল খায়ের ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন বিজিবি’র উপর হামলার ঘটনায় পৃথক ৩টি মামলা দায়ের করা হয়েছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :