১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ৪ আশ্বিন, ১৪২৬ | ১৯ মুহাররম, ১৪৪১


বিবিএন শিরোনাম
  ●  ৯ থেকে ৩০ অক্টোবর উপকূলে মাছ ধরা নিষিদ্ধ   ●  রোহিঙ্গাদের পাসপোর্টে জড়িত কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী   ●  জিম্বাবুয়েকে হারিয়ে ফাইনালে বাংলাদেশ   ●  টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই রোহিঙ্গাসহ নিহত ৩   ●  টেকনাফে জন্ম নিবন্ধন সনদ জালিয়াতির অভিযোগে উদ্যোক্তা সহ আটক ২   ●  পেকুয়ায় ভাড়া বাসা থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার   ●  চকরিয়ায় বন্ধুর ছোটবোনকে ধর্ষণ, যুবক গ্রেফতার   ●  ৩৬ ঘন্টায় বিশ্বজুড়ে ছড়াতে পারে ফ্লু, মারা যেতে পারে ৮ কোটি মানুষ   ●  ঈদগাঁওতে সড়ক ও জনপথ বিভাগের শত কোটি টাকার জমি দখল করে স্থাপনা   ●  টেকনাফে ২১০ টি মিয়ানমারের সীমকার্ড সহ ৩ রোহিঙ্গা আটক

গোসলের ভিডিও করে:জোর-পূর্বক নির্যাতনের চেষ্টা

চকরিয়া উপজেলায় ৩ সন্তানের জননীর গোসল ভিডিও করে,জোর পূর্বক অবৈধ ভাবে দৈহিক ভোগের চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে।গত ৯ সেপ্টেম্বর সকাল সাড়ে ১১ টার দিকে ভিকটিমের বসত-বাড়ীর লাগোয়া পাইপে এ ঘটনা ঘটেছে।জানা যায়,চকরিয়ার ফাসিয়াঁখালী ইউপির ৯নং ওয়ার্ডের ছাইরাখালী গ্রামের আবু তাহেরে স্ত্রী ৩ সন্তানের আনোয়ারা বেগম(২৩)।নির্যাতনকারী একই গ্রামের মৃত ওসমান গণি পুত্র ২ সন্তানের জনক লম্পট মোঃ ফারুক।সরেজমিনে গেলে নির্যাতনের স্বীকার ৩ সন্তানের জননী আনোয়ার বেগম জানান,আমি গোসল করার সময় গোপনে কালো কাগজের ঘেরাও ফটক থেকে ভিডিও করে।এ সময় আমি হঠাৎ টের পেয়ে কে বলে?  উচ্চ গলায় ডাক দিলে স্ব-কৌশলে যাওয়া লম্পট ফারুক আমাকে ভিডিও দেখিয়ে জোর পূর্বক দৈহিক নির্যাতনের চেষ্টা করলে,আমি সু-চিৎকার করি।চিৎকার শুনে রিয়া বেগম নামের মহিলা এগিয়ে এসে ধরতে চাইলে, ফারুক দু’জনকে ধাক্কা পালিয়ে গেছে।এবিষয়ে আমি ইউপি পরিষদে গিয়ে চেয়ারম্যানকে না  পেয়ে ফোনে ঘটনা জানিয়েছি।পরিশেষে আনোয়ার পিঠে ক্ষত চিহৃিনের চাপ দেখা যায়।নাম প্রকাশে অইচ্ছুক পাড়ার কয়েকজন মহিলার বলেন,লম্পট ফারুক ২ বছরে আগে সিগেরেট কোম্পানীর চাকরি করার অবস্হায় চকরিয়ার পালাকাটা নামক গ্রামের দোকানে সিগেরেট দিতে গিয়ে,দোকানদারের স্ত্রীকে গোসল করতে দেখে ভিডিও করার সময় তাকে ধরে মারধর করে বেধেঁ রেখেছিল।তার স্বভাবটাই এই রকম।সুতরাং এর কঠিন শাস্তি কামনা করছি।
এ ঘটনার বিষয়ে লম্পট মোঃ ফারুকের মা দিলদার বেগম বলেন,আমি শুনে ঘটনাস্হলে এসেছি।কারণ নির্যাতনের স্বীকার মহিলাটি আমাকে মা হিসেবে সম্মান করে।তবে আমার ছেলের সাথে কোন ভাব-সাপ নেই।হঠাৎ কেন এমন ঘটনা ঘটল জানতে আসা।এসময় আপনাদের সাথে দেখা হয়ে ভাল হল।পত্রিকায় সংবাদ না করার অনুরোধ জানিয়ে বলেন,আমার ছেলেকে আপনারা অর্থ্যাৎ চেয়ারম্যান-সহ মিলে কঠিন শাস্তি দিয়ে ছেলের সংসারটি যেন রক্ষা হয় এভাবে করবেন।কারণ ছেলেটিও ২ সন্তানের জনক।ঘটনা সত্য আমি সব জেনেছি। এ বিষয়ে স্হানীয় চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গিয়াস উদ্দিন চৌধুরী মুঠোফোনে বলেন,ঘটনা আমাকে জানিয়েছে নির্যাতনের স্বীকার আনোয়ারা ও তার স্বামী আবু তাহের।তারা লিখিত একটি অভিযোগ আমাকে দিবে।আমি এর ব্যবস্হা যেভাবে নেওয়ার নেব।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :