১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ৩ আশ্বিন, ১৪২৬ | ১৭ মুহাররম, ১৪৪১


বিবিএন শিরোনাম

চকরিয়ায় জাতীয় উদ্যান ইকোট্যুরিজম কার্যক্রম উদ্বোধন

জিয়াউল হক জিয়া , চকরিয়া:
কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের ফুলছড়ি রেঞ্জের অধীনস্থ মেদাকচ্ছপিয়া বন বিটের আওতাধীন বনাঞ্চলে , মেদাকচ্ছপিয়া জাতীয় উদ্যান ইকোট্যুরিজম কার্যক্রম শুভ উদ্বোধন করে বন সচিব আব্দুল্লাহ আল মোহসিন চৌধুরী। গত ২৪ জানুয়ারী , বিকাল সাড়ে ৪টার সময় জাতীয় উদ্যান ইকোট্যুরিজমের অফিস ভবণ উদ্বোধনের মাধ্যমে কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করা হয়।
ভবন উদ্বোধন শেষে আলোচনা সভায় অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথির বক্তব্যে বন ও পরিবেশ মন্ত্রণালয়ের বন সচিব আব্দুল্লাহ আল মোহসিন চৌধুরী বলেন, আমি ফুলছড়ি রেঞ্জের অধীনস্থ অত্র খুটাখালী ইউনিয়নের মেধাকচ্ছপিয়া বন বিটের আওতাধীন বনাঞ্চল দেখে খুবই আনন্দিত এই কারণে এখানে শতবর্ষী মাদার ট্রি গাছের বাগান এখনো অক্ষত আছে পাশাপাশি অর্ধশত এবং বিভিন্ন মেয়াদের বনায়নের গাছের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য অবলোকন করতে পারছি। এছাড়া সরকার মেধাকচ্ছপিয়ার এ জায়গার মধ্যে জাতীয় উদ্যান ইকোট্যুরিজম পার্কের কার্যক্রম হাতে নিয়েছে ।
তাই আমি এ কার্যক্রমের শুভ উদ্বোধন করার জন্য এখানে আমার আসা। সুতরাং আগামী জুলাই মাস থেকে দর্শনার্থীদের দেখার জন্য সরকার ৬হাজার কোটি টাকার প্রকল্পের কাজ শুরু করবে। ফলে বন বিভাগের সকল কর্মকর্তা সহ সংশ্লিষ্টদের মধ্যে ক্রেল, বিসিএফ, সিপিজি, পিএফ সকলকে আরো এ বন রক্ষার্থে আন্তরিক হয়ে কাজ করতে হবে । পাশাপাশি ইকোট্যুরিজম এর প্রকল্প কাজ চলাকালীন সকলকে সহযোগিতা ও জলবায়ু সহিঞ্চু প্রাকৃতিক সম্পদ ব্যবস্থাপনায় অভিযোজন ও প্রশমন যৌথ পাহারার দায়িত্বে আন্তরিক হলে অবিলম্বে এখানে জাতীয় উদ্যান ইকোট্যুরিজম পার্কের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য অবলোকন, বিঘ্নতা ঘটার কোন কারণ থাকবে না বলে উল্লেখ করেন তিনি।
উক্ত অনুষ্ঠানে প্রধান বক্তার বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বন বিভাগের প্রধান সহকারী বন সংরক্ষক ও পিডি ক্রেল প্রকল্প বাস্তবায়ক আব্দুল লতিফ মিয়া। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন চট্টগ্রাম বনাঞ্চলের প্রধান (সিসিএফ) জগলুল হোসেন হায়দার। তিনি বলেন , আমি যতবার কক্সবাজার জেলার বনাঞ্চল পরিদর্শনে আসি , ততবারই মেদাকচ্ছপিয়ার জাতীয় উদ্যানের এ বনাঞ্চল আমি ঠিক এভাবে গাছ কর্তনহীন অক্ষত অবস্থায় দেখেছি। এতে আমার খুব ভাল লাগে। তবে এভাবে অত্র বন বিট কর্মকর্তার পাহারা দেওয়া একার পক্ষে সম্ভব নহে। এর সাথে ক্রেল, বিসিএফ, সিপিজি ও পিএফ সকলেরই যৌথ পাহারায় এ বনাঞ্চল টিকিয়ে আছে। কিন্তু বন বিট কর্মকর্তার সুন্দর মনোভাব বনাঞ্চলের প্রতি আন্তরিকতা এবং বনের সাথে সংশ্লিষ্ট অন্যান্যদের সাথে সুন্দর আচরণের কারণে এটি অক্ষত অবস্থায় প্রাকৃতিক সুন্দর ব্যবস্থাপনায় টিকে আছে বলে উল্লেখ করেন।
উপস্থিত অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন চকরিয়া উপজেলার নির্বাহী অফিসার নুরুদ্দীন মো: শিবলু নোমান, সহকারী ভূমি কমিশনার খন্দকার ইফতেখার উদ্দীন মো: আরাফাত, কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগ প্রধান- হক মাহবুব মোর্শেদ, কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগ প্রধান – আলী কবির। উক্ত অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, কক্সবাজার সদর ও ফুলছড়ি রেঞ্জের সহকারী বন সংরক্ষক বেলায়েত হোসেন, কক্সবাজার দক্ষিণের সহকারী বন সংরক্ষক আব্দুল হাই মিয়া , ফুলছড়ি রেঞ্জের ভারপ্রাপ্ত রেঞ্জার আব্দু রাজ্জাক, মেধাকচ্ছপিয়া বিট কর্মকর্তা ছৈয়দ আবু জাকারিয়া, খুটখালী ও মেধাকচ্ছপিয়া বিটের অধীনস্থ ক্রেল সভাপতি মাষ্টার আবুল হোছাইন, ফুলছড়ি রেঞ্জের সিপিজি সভাপতি আলী আকবর, ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জের সিপিজি সভাপতি আবুল বশর, ফুলছড়ি বিটের হেডম্যান ও ইসলামপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আব্দু শুক্কুর, খুটাখালী ০১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য সলিম উল্লাহ,
খুটাখালী ইউনিয়ন আ’লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি বাহাদুল হক, খুটাখালী ইউনিয়ন বিএনপির নেতা আক্তার আহমদ, মেধাকচ্ছপিয়া বন হেডম্যান মকতুল হোছাইন, মোহাম্মদ হোছাইন সহ ক্রেল, সিপিজি, বিসিএফ, পিএফ ও গণমাধ্যম কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। উক্ত অনুষ্ঠানে কোরআন তিলাওয়াত করেন ডুলাহাজারা ডিগ্রি কলেজের ছাত্র মো: ছোটন, অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন মো: আব্দুল কায়েম ও সভাপতিত্ব করেন ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জ কর্মকর্তা মো: আব্দুল মতিন।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :