২২ অক্টোবর, ২০১৯ | ৬ কার্তিক, ১৪২৬ | ২১ সফর, ১৪৪১


বিবিএন শিরোনাম
  ●  ঈদগাঁওতে ৭ বছরের ভাতিজিকে ধর্ষনঃ ধর্ষক চাচা আটক   ●  মাদক মামলায় এসআই’র ৫ বছরের কারাদণ্ড   ●  ঈদগাহকে থানা হিসেবে অনুমোদন   ●  কক্সবাজারের সোনাদিয়া দ্বীপে শিল্প-কারখানা স্থাপন নয় : প্রধানমন্ত্রী   ●  কক্সবাজার জেলা কমিউনিটি পুলিশ : সাংবাদিক তোফায়েল সভাপতি, যুবলীগের বাহাদুর সেক্রেটারি   ●  গুজব ছড়িয়ে সাম্প্রদায়িক অনুভূতিতে আঘাত হানা থেকে বিরত থাকুন : ডিসি কামাল হোসেন   ●  কক্সবাজার আদালতে ইয়াবা মামলায় ২ আসামির ৫ বছর কারাদণ্ড   ●  চাল নিয়ে চালবাজি, সদর খাদ্য গুদাম সীলগালা   ●  রামুতে ভূয়া জন্ম সনদে রোহিঙ্গা স্ত্রীকে ভোটার করার চেষ্টা, দম্পতিকে জরিমানা   ●  ইসলামপুরে জুয়ার আস্তানা গুঁড়িয়ে দিল পুলিশঃ  আটক ৬

জালালাবাদে ৫শ’ মিটার ড্রেনের অভাবে ২০ হাজার জনগণের দূর্ভোগ !  

পর্যাপ্ত পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা না থাকা এবং অপরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থায় কক্সবাজার সদর উপজেলার জালালাবাদ ইউনিয়নের সওদাগর পাড়া, জলদাশ পাড়া, ছাতিপাড়াসহ  বিভিন্ন স্থানে জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। পর্যাপ্ত ড্রেনের অভাব, বিদ্যমান ড্রেনগুলো ময়লায় ভরে যাওয়া,জনৈক ব্যক্তির চামড়া গোদামের পানি চলাচলে প্রতিবন্ধকতাসহ নানা কারণকে দায়ী করেছে এলাকাবাসী। পানি নিস্কাশন ও ড্রেন নির্মাণের বারবার প্রতিশ্রুতিতে ক্লান্ত সওদাগর পাড়া বাসী  । জনদুর্ভোগ নিরসনে পরিষদ   কর্তৃপক্ষের নীরব ভূমিকায় চাপা ক্ষোভ বিরাজ করছে স্থানীয়দের মাঝে।সওদাগর পাড়া এলাকার বাসিন্দা  নুরুল ইসলাম পুতু কোম্পানি  জানান, জলদাশ পাড়ার প্রবেশের মোড়  থেকে  ব্যবসায়ী সিরাজুল হকের বাড়ী পর্যন্ত রাস্তাটিতে সময়ে অসময়  হাঁটু পরিমান পানি জমে থাকে। বৃষ্টিতে ২শ মিটার পর্যন্ত সড়ক  ডুবে যায়। যার ফলে ঐ স্থানটি  এখন খানাখন্দক হওয়ার  উপক্রম হয়েছে। ৫ শ’ মিটার পর্যন্ত একটি ড্রেন নির্মান করা গেলে সমস্যাটি আজীবনের জন্য দূর হবে বলেও আশা করেন তিনি। নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় এক ব্যবসায়ী জানান, বৃষ্টির পানি বের হওয়ার রাস্তা না থাকায় আমাদের বাড়ির উঠান ও রাস্তা সব পানিতে তলিয়ে যায়।ঐ স্থানে প্রভাবশালী এক ব্যক্তির চামড়া গোদামের অপরিষ্কার ও নোংরা পানি সড়কে জমে থাকে প্রতিনিয়ত। ফলে যান চলাচল ও শিক্ষার্থীদের দূর্ভোগ অসহনীয় পর্যায়ে চলে গেছে। উক্ত সড়ক দিয়ে জালালাবাদ, পোকখালী, ইসলামাবাদের একাধিক গ্রামের আনুমানিক ২০ হাজারের অধিক জনগণ ও কোমলমতি ছাত্র-ছাত্রী চলাচল করে থাকে। স্থানীয় ওয়ার্ড মেম্বার বেশ কয়েকবার   নিজে এসে নাসি কেটে পানি বের করার জন্য চেষ্টা চালিয়েছিল বলে জানা গেছে। কিন্তু ভালো ড্রেন না থাকলে এ অবস্থা থেকে উত্তরণ সম্ভব না। জালালাবাদ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইমরুল হাসান রাশেদ’এর সাথে এ বিষয়ে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, বৃষ্টির কারনে এতদিন কাজ করা হয়নি। আজ সকাল থেকে উক্ত স্থানে ড্রেনের কাজ শুরু হয়েছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :