১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ১ আশ্বিন, ১৪২৬ | ১৬ মুহাররম, ১৪৪১


টেকনাফ সমুদ্রে ভেসে যাওয়া মাদ্রাসা ছাত্র মো. আলীর মৃতদেহ উদ্ধার

টেকনাফ সমুদ্র সৈকতে বন্ধুদের সাথে ফুটবল খেলতে নেমে গভীর সমুদ্রে ভেসে যাওয়া টেকনাফ বায়তুশ শরফ মাদ্রাসার নবম শ্রেণির ছাত্র মোহাম্মদ আলী’র মৃতদেহ টেকনাফ সমুদ্র সৈকতের লম্বরী ঘাট পয়েন্ট থেকে উদ্ধার করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার ১৫ আগস্ট সকাল ৭’৩৫ মিনিটে মোহাম্মদ আলীর মৃতদেহটি উদ্ধার করা হয়। টেকনাফ ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার মুকুল কুমার নাথ বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, মৃতদেহটি টেকনাফ মডেল থানা পুলিশের মাধ্যমে সমস্ত অফিসিয়াল আনুষ্ঠানিকতা সম্পন্ন করে বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৯ টায় স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। মৃতদেহ উদ্ধার করা মোহাম্মদ আলী (১৪) টেকনাফ পৌরসভার ৫ নম্বর ওয়ার্ডের ডেইল পাড়া এলাকার রমিজ আহমেদর পুত্র। বুধবার ১৪ আগস্ট বিকেল ৪ টার দিকে টেকনাফ বীচের মহেশখালীয়া পাড়া পয়েন্টে এঘটনা ঘটে। ঘটনার পরপরই ফায়ার সার্ভিসের লোকজন ঘটনাস্থলে গেলেও সমুদ্রে ডুবে যাওয়া লোকজন উদ্ধারে তাদের কোন সরন্ঞ্জাম, ডুবুরী, প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মী না থাকায় তারা কোন কাজ করতে পারেননি। মেরিন ড্রাইভ রোড ও সমুদ্রের ভাঙ্গন রক্ষার জন্য টেকনাফ সমুদ্র সৈকত থেকে বালি নিয়ে জিও টেক্সটাইল ব্যাগ গুলো ভর্তি করে দেয়ায় সেখানে বড় বড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। সে গর্তের পানিতে তলিয়ে গিয়ে মোহাম্মদ আলী গভীর সমুদ্রে ভেসে যায় বলে তার সাথে খেলতে যাওয়া বন্ধুরা সিবিএন-কে জানিয়েছিলেন। মোহাম্মদ আলীর পিতা আগে থেকেই খুবই অসুস্থ ছিলেন। মোহাম্মদ আলী’র পরিবার অত্যন্ত গরীব হওয়ায় সে মাদ্রাসায় পড়াশুনার পাশাপাশি টাইলস মিস্ত্রির সহকারী হিসাবেও কাজ করতো। প্রসঙ্গত, গত ১০ আগস্ট কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতে গোসল করতে নেমে রুয়েটের মেধাবী ছাত্র আরিফুল ইসলাম ও উচ্চ শির্ক্ষার্থে বিদেশ যাওয়ার জন্য প্রস্তুতি নেয়া কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ের এসএসসি ২০১৫ ব্যাচের কৃতি ছাত্রদ্বয় প্রাণ হারায়। এ নিয়ে গত ৫ দিনে কক্সবাজার ও টেকনাফ বীচে গভীর সমুদ্রে ভেসে গিয়ে ৩ জন ছাত্র মর্মান্তিকভাবে প্রাণ হারালো।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :

error: Content is protected !!