২১ অক্টোবর, ২০১৯ | ৫ কার্তিক, ১৪২৬ | ২১ সফর, ১৪৪১


বিবিএন শিরোনাম

টেকনাফ স্থলবন্দরে দুই দিনে ১৪শ মেট্রিকটন পেঁয়াজ আমদানি

বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের যুগ্মসচিব তৌফিকুর রহমানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল টেকনাফ স্থলবন্দর পরিদর্শন করে ব্যবসায়ী নেতৃবৃন্দ ও বন্দর কর্তৃপক্ষের সাথে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে সম্প্রতি পেঁয়াজের বাজার দর উর্ধ্বমুখি হওয়ায় দেশের চাহিদা মেটানোর জন্য শুল্কমুক্ত পেঁয়াজ আমদানিতে উৎসাহিত করা হয়েছে। বৈঠকে জানানো হয় দিকে গত দুই দিনে এই বন্দর দিয়ে ১ হাজার ৪শ মেট্রিকটন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। বুধবার বিকেলে এ বৈঠত অনুষ্ঠিত হয়।

এর আগে বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে যুগ্মসচিব তৌফিকুর রহমানের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল টেকনাফ স্থলবন্দর পরিদর্শন করেন। তিনি বন্দরের সমস্যা ও সম্ভাবনা ঘুরে-ফিরে দেখেন। এরপর জেলা প্রশাসনের সার্বিক সহায়তায় এবং উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে টেকনাফ স্থলবন্দরের ব্যবসায়ী ও বন্দর কর্তৃপক্ষের সাথে একান্ত বৈঠকে বসেন। বৈঠকে কক্সবাজার জেলা প্রশাসকের প্রতিনিধি অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মাসুদুর রহমান মোল্লা, টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ রবিউল হাসান, কক্সবাজার চেম্বার অব কর্মাসের সভাপতি আবু মোর্শেদ চৌধুরী খোকা, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল আলম, স্থলবন্দর সিঅ্যান্ডএফ অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক এহতেশামুল হক বাহাদুর, ব্যবসায়ী মোহাম্মদ হাসেম,যদু চন্দ্র দাস, মোঃ সোহেল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বৈঠকে যুগ্মসচিব তৌফিকুর রহমান বলেন, পেঁয়াজের মূল্য নিয়ে যেসব ব্যবসায়ী কারসাজি করে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে বিশৃংখল পরিবেশ সৃষ্টির অপচেষ্টা চালাচ্ছে তাদের চিহ্নিত করে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে। তাই ব্যবসায়ীদের বেশী লাভের আশা না করেই পেঁয়াজের সংকট দূর করতে এগিয়ে আসতে হবে।এই ব্যাপারে সরকার ব্যবসায়ীদের সুযোগ-সুবিধা দিয়ে সহায়তা করবে। বৃহস্পতিবার হতে এই স্থলবন্দর দিয়েই শুল্কমুক্ত পেঁয়াজ আমদানির ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

টেকনাফ স্থলবন্দর শুল্ক কর্মকর্তা আবছার উদ্দিন সাংবাদিকদের জানান,টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে মিয়ানমার থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ ভর্তি ৩৭টি ট্রাক দেশের বিভিন্ন স্থানে রওয়ানা দিয়েছে। আরো পেঁয়াজ খালাসের অপেক্ষায় রয়েছে।

আমদানিকারক মোহাম্মদ হাশেম জানান, সকালে পেঁয়াজ বুকিং দিতে ওপারে যোগাযোগ করা হলে পূর্বের ক্রয়মূল্যের চেয়ে প্রতি টন পেঁয়াজে ৩শ ডলার করে বেশী মূল্য দাবি করছে।

এই ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ রবিউল হাসান জানান, গত দুইদিনে মিয়ানমার হতে ১ হাজার ৪শ মেট্রিক টন পেঁয়াজের চালান খালাস করা হয়েছে। ব্যবসায়ীরা আন্তরিক হলে আরো বেশী পেঁয়াজের চালান খালাস হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :