২২ আগস্ট, ২০১৯ | ৭ ভাদ্র, ১৪২৬ | ২০ জিলহজ্জ, ১৪৪০


বিবিএন শিরোনাম
  ●  টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ রোহিঙ্গা নিহত   ●  শরণার্থীদের অনাগ্রহে এবারও হলো না রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন   ●  ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করা হবে : প্রধানমন্ত্রী   ●  মিয়ানমারে বিদ্রোহীদের হামলায় ৩০ সেনা নিহত   ●  মাতামুহুরী নদী থেকে দুই হাজার মিটার নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল জব্দ   ●  চৌফলদন্ডীতে পুলিশের উপর হামলা করে ইয়াবা ব্যবসায়ী ছিনতাই, আহত ২   ●  ঈদগাঁওতে সৌদিয়া পরিবহনের ধাক্কায় বৃদ্ধ নিহত   ●  জালালাবাদ থেকে দুই ইয়াবা ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ   ●  চকরিয়ায় সার্ফারী পার্কে প্রশিক্ষিত হাতির আঘাতে মাহুত নিহত   ●  বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী জিয়াউর রহমানকে ইতিহাস ক্ষমা করেনি-এমপি কমল

দেখার কেউ নেই: রাস্তার মাঝখানে বিদ্যুতের খুঁটি!

দীর্ঘ এক যুগেরও বেশী সময় ধরে পল্লী বিদ্যুতের খুঁটিটি রাস্তার মাঝখানে সগৌরবে দাঁড়িয়ে আছে। দৃশ্যটি পেকুয়া উপজেলার বারবাকিয়া ইউনিয়নের ফাঁসিয়াখালী বোধামাঝিরঘোনা গ্রামের একমাত্র চলাচলের রাস্তার। এতে স্থানীয়দের চলাচলের দুর্ভোগ হলেও খুটিটি সরানোর কোন উদ্যোগ নেয়নি পল্লী বিদ্যুত কর্তৃপক্ষ। স্থানীয়দের অভিযোগ, খুটিটি সরানোর জন্য এলাকার লোকজন মিলে পল্লী বিদ্যুতের অফিসারদের টাকা দিলেও কাজ হয়নি। আজ-কাল করতে করতে খুটিটি সরাচ্ছেনা তারা।

স্থানীয় অধিবাসি মো: রাসেল জানান, “দীর্ঘ একযুগেরও বেশী সময় ধরে পল্লী বিদ্যুতের খুটিটি রাস্তার মাঝখানে পড়ে থাকলেও এটি কোনসময় সরানোর উদ্দ্যোগ নেয়নি পল্লী বিদ্যুত কর্তৃপক্ষ। পল্লী বিদ্যুতের অফিসাররা এলেই আমরা তাদেরকে বিদ্যুতের খুটিটি সরানোর জন্য বলি। প্রত্যেকবারই তারা আমাদের আশ্বাস দেয় কিন্তু কোনবারই খুটিটি সরানোর ব্যবস্থা নেয়নি।”

স্থানীয় কৃষক আবদুস সালাম, কপিল, সামাদ সহ আরো অনেকে জানান, “খুটিটি সরানোর জন্য এলাকার লোকজন মিলে পল্লী বিদ্যুতের দাবিকৃত টাকাও অফিসারদের হাতে দিয়েছি। তারপরও খুটিটি সরাচ্ছেনা তারা। এতে করে এ রাস্তা দিয়ে কোন গাড়ী চলাচল করতে পারছেনা। সরকার রাস্তাটি নতুনভাবে করে দিয়েছে কিন্তু রাস্তার মাঝখানে পল্লী বিদ্যুতের খুটির কারণে সড়কটি দিয়ে কোন গাড়ী চলাচল করতে পারছেনা।”

ওই সড়কের পাশে অবস্থিত আখতারুজ্জামান চৌধুরী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সজীব, ফাহিম, করিম সহ অনেক শিক্ষার্থী জানান, তাদের সুবিধার্থে গাড়ী চলাচলের জন্য সরকার এ রাস্তাটি পাকা করে দিলেও রাস্তার মাঝখানে বিদ্যুতের খুটি থাকার কারণে রাস্তা দিয়ে কোন গাড়ী চলতে পারেনা। তাই আমাদেরকে অনেকদূর থেকে হেঁটে এ স্কুলে আসতে হয়।

স্থানীয় লোকজন জানান, “সড়কটি পাকাকরণের সময় খুটিটি সরানোর জন্য ঠিকাদারকেও অনুরোধ করা হয়েছিল কিন্তু উপজেলা প্রকৌশলী জাহেদুল ইসলাম এলজিইডিতে পল্লী বিদ্যুতের খুটি সরানোর কোন বাজেট নেই উল্লেখ করে রাস্তার মাঝখানে অবস্থিত খুটিটি সরানোর অনুরোধ জানিয়ে পল্লী বিদ্যুতের জেনারেল ম্যানেজার বরাবরে একটি চিঠিও লিখেন। এরপরও কোন কাজ হয়নি।

এ বিষয়ে বারবাকিয়া ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আবু ছৈয়দ টুকু বলেন, “রাস্তাটি বুধামাঝির ঘোনা এলাকার চলাচলের একমাত্র রাস্তা। অনেক আগেই রাস্তার মাঝখান থেকে খুটিটি সরানোর বিষয়ে আমরা পল্লী বিদ্যুতকে জানিয়েছি কিন্তু তারা কেন সরাচ্ছেনা তা আমাদের বোধগম্য নয়।”

বারবাকিয়া ইউপি চেয়ারম্যান মওলানা বদিউল আলম জিহাদী জানান, “রাস্তাটি নির্মাণের সময় স্থানীয় সরকার বিভাগকে অনুরোধ করেছিলাম উন্নয়ন বাজেট থেকে খুটিটি সরানোর ব্যবস্থা নিতে; কিন্তু পল্লী বিদ্যুতের খুটি এলজিইডি সরাতে গেলে আইনী জঠিলতা তৈরী হবে বিধায় তারা তা না করে খুটিটি সরানো জন্য পল্লী বিদ্যুতকে অনুরোধ জানিয়ে একটি চিঠি দেন। বিষয়টি এখনো এ পর্যন্তই সিমাবদ্ধ আছে। খুটিটি সরানোর কোন ব্যবস্থা হয়নি”

এ বিষয়ে পেকুয়া উপজেলা পল্লী বিদ্যুতের ইনচার্জ পূর্ণেন্দু মজুমদারের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, “আমি পেকুয়ায় জয়েন্ট করেছি ২০ জুলাই। বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে রাস্তার মাঝখানে খুটি থেকে থাকলে তা অবশ্যই সরানোর ব্যবস্থা নিব।”

এ বিষয়ে জানতে চাইলে পল্লী বিদ্যুতের চকরিয়া জোনাল অফিসের ডিজিএম মোছাদ্দেকুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, “বন্যা পরবর্তী বিদ্যুতের লাইন সংস্কারের বিভিন্ন কাজের চাপের কারণে পেকুয়ায় রাস্তার উপর থেকে খুটিটি সরানো সম্ভব হয়নি। তবে তা সরানোর জন্য অনুমোদ হয়ে আছে। ঈদের পরে অবশ্যই খুটিটি সরানোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।”

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :