২২ অক্টোবর, ২০১৯ | ৬ কার্তিক, ১৪২৬ | ২১ সফর, ১৪৪১


বিবিএন শিরোনাম
  ●  ঈদগাঁওতে ৭ বছরের ভাতিজিকে ধর্ষনঃ ধর্ষক চাচা আটক   ●  মাদক মামলায় এসআই’র ৫ বছরের কারাদণ্ড   ●  ঈদগাহকে থানা হিসেবে অনুমোদন   ●  কক্সবাজারের সোনাদিয়া দ্বীপে শিল্প-কারখানা স্থাপন নয় : প্রধানমন্ত্রী   ●  কক্সবাজার জেলা কমিউনিটি পুলিশ : সাংবাদিক তোফায়েল সভাপতি, যুবলীগের বাহাদুর সেক্রেটারি   ●  গুজব ছড়িয়ে সাম্প্রদায়িক অনুভূতিতে আঘাত হানা থেকে বিরত থাকুন : ডিসি কামাল হোসেন   ●  কক্সবাজার আদালতে ইয়াবা মামলায় ২ আসামির ৫ বছর কারাদণ্ড   ●  চাল নিয়ে চালবাজি, সদর খাদ্য গুদাম সীলগালা   ●  রামুতে ভূয়া জন্ম সনদে রোহিঙ্গা স্ত্রীকে ভোটার করার চেষ্টা, দম্পতিকে জরিমানা   ●  ইসলামপুরে জুয়ার আস্তানা গুঁড়িয়ে দিল পুলিশঃ  আটক ৬

ভিন্ন গ্রাম্য বধু…

ব্দুর রশিদ, বাইশারী:

অসম্ভবকে সম্ভব করতে মনের সাহসই যে সবচেয়ে বেশি কার্যকরী তা প্রমান করেছেন কক্সবাজারের রামুর গর্জনিয়ার বোমাংখিল গ্রামের এক নারী। তাঁর নাম সাজনীন জাহান। তিনি সুশিক্ষিত।

অন্যান্য গ্রাম্য বধুর মতোই চার দেওয়ালের গণ্ডির মধ্যে রক্ষনশীল জীবন যাপন করার কথা থাকলেও তিনি সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম। অদম্য স্পৃহা ও প্রবল সাহসের মাধ্যমে তিনি বর্তমানে একজন নারী উদ্যোক্তা এবং সফল কৃষানি হওয়ার চেষ্টা করছেন।

ইতোমধ্যে নিজ উদ্যোগে স্বশ্রমে বাড়ির আঙিনায় শসা, বেগুন, টমেটো, লাউ, মরিচ, বরবটি, ধনে পাতা, শিম, আলু, কাকরল, পুকুরে মাছ চাষ, হাঁস-মুরগী-কবুতর লালন পালন করে পেয়েছেন সফলতা।

সাজনীন জাহান নিজেকে কিষানি পরিচয় দিতেই ভালোবাসেন। অথচ তাঁর আগের পাঁচ প্রজন্মের কেউ নাকি কৃষিকাজের সঙ্গেই যুক্ত ছিলেন না। তাঁর বিয়ে হয়েছে রাজনৈতিক পরিবারে, সরাসরি তাঁদেরও কেউ কৃষিকাজের সঙ্গে যুক্ত নন।

একটা সম্পদশালী পরিবারের সদস্য হয়েও কেন কৃষিকাজের সঙ্গে যুক্ত এমন প্রশ্নে সাজনীন বলেন, ‘সাধারণত ধনী পরিবারের নারীরা একটু বিলাশ বহুল জীবন যাপন করতে ইচ্ছুক, তাঁরা কাজকে তেমন গুরুত্ব দেয় না। সে ক্ষেত্রে আমার উদ্যোগটা একটা সামাজিক আন্দোলন। আমি কৃষি কাজেই সফলতার স্বপ্ন দেখি।’

সাজনীন জাহানের স্বামী শাহারীয়ার ওয়াহেদও একজন সামাজিক উদ্যোক্তা। স্ত্রীর কৃষিকাজের বিষয়ে তিনি বলেন, ‘নিজের সন্তানের মতোই বাড়ির আঙিনার খেতখামারকে গুরুত্ব দেওয়া খুবই আনন্দের বিষয়। তিনি স্ত্রীকে এ ক্ষেত্রে প্রতিনিয়ত সাহস যোগান।’

গর্জনিয়া ইউনিয়নের দায়িত্বপ্রাপ্ত উপজেলার উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা উত্তম কুমার চৌধুরী বলেন, ‘সাজনীন জাহানের উদ্যোগটি অসাধারণ। তাঁর দেখাদেখি সম্পদশালী পরিবারের অনেক নারীই কৃষিকাজে সম্পৃক্ত হবেন।’

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :