২১ অক্টোবর, ২০১৯ | ৫ কার্তিক, ১৪২৬ | ২১ সফর, ১৪৪১


বিবিএন শিরোনাম

লামায় হিন্দু ধর্মালম্বীদের শারদীয় দূর্গা উৎসব শুরু

বান্দরবানের লামায় শ্রী শ্রী কেন্দ্রীয় হরিমন্দিরে প্রতি বৎসরের ন্যায় এই বৎসরেও সার্বজনীন শারদীয় দূর্গাপূজা ষষ্ঠি পূর্জার মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে। শুক্রবার (৪ সেপ্টেম্বর) রাত ৮টায় লামা কেন্দ্রীয় হরিমন্দিরে দূর্গা পূজা উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে এ ধর্মীয় অনুষ্ঠান শুরু হয়। পরে এবারের মন্ডপে বিশেষ আকর্ষণ “মেঘের গর্জন” তিম প্রর্দশন করা হয়।শারদীয় দূর্গাপূজা উপলক্ষে ফিতা কাটার মধ্যদিয়ে শুভ উদ্বোধন করেন করেন লামা পৌরসভার মেয়র মোঃ জহিরুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন লামা উপজেলা নিবার্হী অফিসার নূর-এ-জন্নাত রুমি।
বিশেষ অতিথি হিসেবে অন্যান্যদের মাঝে উপস্থিত ছিলেন লামা থানা অফিসার ইনচার্জ আপ্পেলা রাজু নাহা, ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ জাহেদ উদ্দীন,প্রেস ক্লাবের সাধারন সম্পাদক মোঃ কামরুজ্জামান, মন্দির পরিচলনা কমিটির সভাপতি প্রশান্ত ভট্টাচার্য্য, সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ কান্তি দাশ, উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বাবুল দাশ, সাধারণ সম্পাদক বিজয় আইচ,সহ -সভাপতি রতন দত্ত, অর্থ সম্পাদক গোপন চৌধুরী,পৌর আ,লীগের সভাপতি মোঃ রফিক,উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি মাইকেল আইচ প্রমূখ। এতে ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে সকলকে শারদীয় শুভেচ্ছা জানান ও কুশল বিনিময় করেন।পরে পৃথক অরেকটি অনুষ্ঠানে লামা আবাসিক সিহীল হোটেল অফিসে লামা উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও লামা কেন্দ্রীয় হরি মন্দির পরিচালনা কমিটির নব নির্বাচিত সাধারন সম্পাদক প্রদীপ কান্দি দাশের সৌজন্যে সনাতনী যুব সমাজের মাঝে বস্ত্র বিতরণ করা হয়।সরেজমিনে জানা যায়,এবারে লামা উপজেলায় মোট ৮টি মন্ডপে এই পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে।  এরমধ্যে লামা পৌরসভায় কেন্দ্রীয় হরিমন্দির ও চম্পাতলী লোকনাথ মন্দির এ ২টি, লামা সদর ইউনিয়নে মেরাখোলা হরিমন্দির ১টি,ফাঁসিয়াখালীতে ৪টি, আজিজনগর ইউনিয়নে ১টিসহ মোট ৮টি উপজেলায় মন্ডপ রয়েছে।
এ বছর দেবী দুর্গা আগমন করবেন ঘোটকে আর গমনও করবেন ঘোটকে। ৪/৫ দিন থেকে সনাতনী সম্প্রদায়ের মানুষের মাছে কড়া নাড়ছে দূর্গোৎসবের আনন্দের বারতার। শুধু সনাতনী সম্প্রদায় নয়, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এই বাংলাদেশে সকল সম্প্রদায়ের লোকজনের কাছে এ দুর্গোৎসব একটি সামাজিক উৎসবও বটে।
লামা উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি বাবুল দাশ,সাধারণ সম্পাদক বিজয় আইচ,সি,সহ-সভাপতি রতন দত্ত,অর্থ সম্পাদক গোপন চৌধুর জানান, এবছর দুর্গাপুজাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক আয়োজন করা হয়েছে। তারা পুজাকে সুষ্ঠু ও সুন্দর ভাবে উদযাপন জন্য প্রশাসনসহ সকল সম্প্রদায়ের মানুষের সার্বিক সহযোগিতা কামনা করেন।এক্ষেত্রে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রী বীর বাহাদুর (ঊশৈসিং) এমপি সরাসরি উৎসবে উপস্থিত থাকবেন বলে আশা করছে সংশিষ্টরা।
লামা থানার ওসি অপেল্লা রাজু নাহা জানান, পুজাকে কেন্দ্র করে বরাবরের মতোই পুলিশের পক্ষ থেকে প্রতিটি পূর্জামন্ডবে নিছিদ্র নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।
লামা উপজেলা নির্বাহী অফিসার নূর-এ- জন্নাত রুমি জানান, এবারে সরকারিভাবে লামা উপজেলার ৮টি পূর্জা মন্ডবের জন্য ১৬ মেট্রিক টন জিআর চাল বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্য লামা কেন্দ্রীয় হরিমন্দিরে সাড়ে ৫ মে,টন আর বাকি ৭টিতে মন্ডপে প্রতিটিতে দেড় মে,টন করে বরাদ্দ দেওয়া হয়।এর পাশিপাশি শারদীয় দূর্গােৎসবের সুন্দর ও সুষ্ঠুভাবে পালন করার জন্য আইন- শৃংখলা বাহিনীরা মাঠে রয়েছে।

প্রতি মুহুর্তের সর্বশেষ খবর পেতে এখানে ক্লিক করে আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিন

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :