২২ আগস্ট, ২০১৯ | ৭ ভাদ্র, ১৪২৬ | ২০ জিলহজ্জ, ১৪৪০


বিবিএন শিরোনাম
  ●  টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ২ রোহিঙ্গা নিহত   ●  শরণার্থীদের অনাগ্রহে এবারও হলো না রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন   ●  ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলায় জড়িতদের শাস্তি নিশ্চিত করা হবে : প্রধানমন্ত্রী   ●  মিয়ানমারে বিদ্রোহীদের হামলায় ৩০ সেনা নিহত   ●  মাতামুহুরী নদী থেকে দুই হাজার মিটার নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল জব্দ   ●  চৌফলদন্ডীতে পুলিশের উপর হামলা করে ইয়াবা ব্যবসায়ী ছিনতাই, আহত ২   ●  ঈদগাঁওতে সৌদিয়া পরিবহনের ধাক্কায় বৃদ্ধ নিহত   ●  জালালাবাদ থেকে দুই ইয়াবা ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ   ●  চকরিয়ায় সার্ফারী পার্কে প্রশিক্ষিত হাতির আঘাতে মাহুত নিহত   ●  বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের প্রধান আসামী জিয়াউর রহমানকে ইতিহাস ক্ষমা করেনি-এমপি কমল

সুস্থ থাকুন: আম বেশি খাবেন না!

ফলের রাজা আম, যা গরমকালে শরীরকে বেশ প্রশান্তি দেয়। তবে অতিরিক্ত আম খাওয়া মোটেই ঠিক নয়, বিশেষ করে রোগীদের জন্য। একটু বেশি মাত্রায় আম খেলে হতে পারে শরীরের নানা ক্ষতি।* পাকা আম খাওয়া ভালো, তবে খুব বেশি খাওয়া ঠিক নয়। পাকা আমে থাকে ভিটামিন ‘সি’, ভিটামিন ‘বি’, থায়ামিন, রিবোফ্লাভিন, ভিটামিন ‘এ’ বা বিটা ক্যারোটিন, উচ্চমাত্রার চিনি, কার্বোহাইড্রেট, গ্লাইসেমিক ইত্যাদি। পাকা আমে ফিনোলিকসজাতীয় উপাদান থাকায় তা অ্যান্টি-অক্সিডেন্টের ভালো উৎস বটে। পাকা আমে চিনির পরিমাণ বেশি থাকায় শরীর খারাপ হওয়ার আশঙ্কা বাড়ায়।বিশেষ করে যারা ডায়াবেটিক রোগী, তাদের পাকা আম থেকে দূরে থাকা উচিত। কেননা রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ দ্রুত বাড়িয়ে শরীরের ক্ষতি করতে পারে পাকা আম।* যারা অ্যাজমায় ভুগছেন, তারা প্রয়োজনে কম মাত্রায় আম খান। বিশেষ করে কিডনির সমস্যা রয়েছে যাদের, তাদেরও বেশি আম খাওয়া উচিত নয়।* পাকা আম অতিরিক্ত খেলে ওজন বেড়ে যায়। বেড়ে যায় রক্তে শর্করার পরিমাণও। আমে থাকা কিছু উপাদান যেমন- ফিটোকেমিক্যাল কম্পাউন্ড তথা গ্যালিক এসিড, ম্যাঙ্গফেরিন, কোয়ার্নেটিন এবং টেনিন বা কষজাতীয় উপাদানগুলো বেশ ক্ষতিকর।তাই এই আমের মৌসুমে আম খান পরিমিত। বিশেষ করে রোগীরা আম খাওয়ার ব্যাপারে সাবধানতা অবলম্বন করুন।

ডা. আলমগীর মতি

হারবাল গবেষক ও চিকিৎসক

মডার্ন গ্রুপ

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।





আপনার মতামত লিখুন :